মোবাইল ফোন ব্যবহারে যে ভুলগুলো কখনোই করবেন না।

আমাদের মাঝে যারা কিনা মোবাইল ফোন বা স্মার্ট ফোন ব্যবহার করেন তাদের জন্য এই পোস্টটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা রেগুলার মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে গিয়ে বেশ কিছু ভুলভাল কাজ করে ফেলি  যেটা মোবাইল ফোন এর জন্য অবশ্য ঠিক নয়।  আমরা মোট 10 টি পয়েন্ট নিয়ে কথা বলবো।  এই 10 টি কাজ স্মার্টফোনের সাথে অবশ্যই করা ঠিক হবে না।  চলো শুরু করি…

১। মোবাইল ফোন চার্জ দেয়ার সঠিক পদ্ধতি

আমরা নরমাল ফোনে চার্জ দেওয়ার জন্য  micro-usb  ব্যবহার করি।  এবং দেখা যায় ইউএসবি পোর্ট ব্যবহার করতে করতে নরমালি ফোনের চার্জ দেওয়ার অংশটুকু নষ্ট হয়ে যায়।  দেখা যায় অনেক ফোন 6 মাস পার হয় নাই তাদের অনেকের ইউএসবি পোর্ট নষ্ট হয়ে গিয়েছে। নরমালি প্রায় সবার ফোনে ইউএসবি সি টাইপ  চার্জার সাপোর্ট করে না।   এবং অনেকেই মাইক্রো ইউএসবি ব্যাবহার করতে গিয়ে চার্জিং এর সঠিক পদ্ধতি অবলম্বন না করে ভুল পদ্ধতিতে চার্জিং পোর্ট লাগায়।  এর ফলে আপনার ফোনের চার্জিং পোর্ট ড্যামেজ হয়ে যেতে পারে।  এজন্য আপনি  ফোন চার্জ করার ক্ষেত্রে সতর্ক হতে পারেন।  এবং আপনার ফোনটি যদি মাইক্রো ইউএসবি পোর্ট চার্জিং সিস্টেম হয় তবে আপনার চার্জিং পোর্ট এর মাথায় একটি স্কচটেপ অথবা অন্য কোন পেপার টেপ লাগিয়ে রাখতে পারেন যাতে বুঝতে পারেন আসলে সঠিক  পজিশন কোনটি। 

 

২। আননোন সোর্স থেকে অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করে সেটা মোবাইল ফোন -এ ইনস্টল করা।

 আমরা অনেকেই প্লে স্টোরে যদি দেখি বিভিন্ন অ্যাপ যেগুলো ইন্সটল করতে টাকা দিতে হয়।  এবং এমন কিছু অ্যাপ আছে যেগুলো প্লে স্টোরে পাওয়া যায় না।  সেগুলো নরমালি আমরা অন্য যেকোনো থার্ড পার্টি ওয়েবসাইট থেকে  ডাউনলোড করে ইন্সটল করি।  দুঃখজনক হলেও এটাই সত্য যে এই কাজটি করা স্মার্টফোনের জন্য মারাত্মক রিস্ক। তবুও এই কাজটি যদি আপনাকে করতেই হয় তবে অবশ্যই সেই ওয়েবসাইট থেকে আপনি অ্যাপটি ডাউনলোড করছেন সেটি দেখে নেবেন আসলেই কোনো  বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট কিনা। আপনি যদি অন্য কোন ওয়েবসাইট থেকে কোন অ্যাপ ডাউনলোড করেন এতে করে আপনার ফোনে খুব সহজেই মেলওয়ার ভাইরাস চলে আসতে পারে।  আর এটি চলে আসলে আপনার ফোনকে ধ্বংস করতে তার বেশিক্ষণ সময় লাগবে না। তাই আননন third-party কোন ওয়েবসাইট থেকে অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করা থেকে বিরত থাকুন। ট্রাই করুন গুগল প্লে স্টোরের অ্যাপ্লিকেশনগুলো ইন্সটল করে ব্যবহার করার। 

আরও পড়ুন -   [YouTube Vanched - No Ads ] এখন থেকে ইউটিউবে ভিডিও দেখুন বিরক্তিকর Ads ছাড়া - premium version ।

৩। মোবাইল ফোন কে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা

 আমরা অনেকেই চাই আমাদের স্মার্টফোনটি পরিষ্কার এবং পরিচ্ছন্ন থাকুক এবং এটি করার জন্য অনেকেই হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করে থাকেন যেটি স্মার্টফোনের জন্য মারাত্মক ঝুঁকির একটি সিস্টেম।  এবং আমরা অনেকেই হ্যান্ড স্যানিটাইজার নিয়ে স্মার্ট ফোনের ওপরে সেটি স্প্রে করি। না এই কাজটি ভুলেও করতে যাবেন না। হ্যান্ড স্যানিটাইজার সরাসরি ফোনের ডিসপ্লেতে মোটেও দিবেন না।  সরাসরি হ্যান্ড স্যানিটাইজার ফোনের অথবা ল্যাপটপের বা কম্পিউটারের ডিসপ্লে তে দিলে সেটি নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা 80% এরও বেশি।  সেম কাজটাই আপনারা  টিভির সাথে ও করতে যাবেন না।  আমার দেখা দুজন লোক এই কাজটি করতে গিয়ে তারা ডিসপ্লে নষ্ট করেছে।  একজন তার টিভি নষ্ট করেছে আরেকজন তার স্যামসাংয়ের ফোনের ডিসপ্লে নষ্ট করেছে।  তাই যদি আপনি হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়েই ফোনটিকে পরিষ্কার এবং পরিচ্ছন্ন করতে চান তবে  কাপড়ে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ঢেলে নিন এবং তারপর সেই কাপড় দিয়ে আপনি আপনার ফোনের ডিসপ্লে ঘষে পরিষ্কার করে ফেলুন। 

মোবাইল ফোন পরিস্কার রাখা

৪। এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার ব্যবহার করা:

 অনেকেই ফোনকে নিরাপদ রাখার জন্য  বিভিন্ন এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার ব্যবহার করে থাকেন। না, এই জিনিসটা ব্যবহার করার কোন প্রয়োজন নাই। আপনার স্মার্টফোনে এটা ব্যবহার করে কোন ধরনের উপকারী আপনি পাবেন না। আবার অনেকেই বিভিন্ন ধরনের ক্লিনার অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে থাকেন। সেটারও ব্যবহার করার কোনো প্রয়োজনীয়তা নেই। এই জিনিসটা উল্টা আপনার স্মার্টফোন এর উপরে আরো জেঁকে বসবে। তাই  তাই এটা  ব্যবহার করা থেকে অবশ্যই বিরত থাকুন। আবার এমন কিছু ক্লিনার অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে যেগুলো কিনা নিজেই মেলওয়ার  ভাইরাস নিয়ে এসে স্মার্টফোনকে ধ্বংস  করে ফেলে। তাই সাবধান। 

 

৫। মোবাইল ফোন -এ কখনোই স্টোরেজ ফুল করবেন না।

ধরুন আপনার ফোনে  64 জিবি স্টোরেজঃ রয়েছে এবং আপনি সেটি অর্ধেকেরও বেশি ইউজ করে ফেলেছেন। এতে করে দেখা যাবে আপনার ফোন আগের মত ঠিক পারফরম্যান্স করছে না। আমরা অনেকেই আমাদের ফোন মেমোরি সর্বোচ্চ ব্যবহার করে থাকে এবং দেখা যায় যে মাত্র দুই থেকে তিন জিবি ফ্রি স্পেস থাকে বাকিটুকু ভরা থাকে।  কি করে ফোনের পারফরম্যান্স ড্রপ  হয়ে যায়   80%। 

আরও পড়ুন -   BD Skill এর পক্ষ থেকে নিয়ে নিন ১০ টি Premium NordVPN Account Free.

 তাই আপনি আপনার ফোনের স্টোরেজ যত ফাঁকা রাখবেন ততবেশি পারফরম্যান্স দিবে আপনার ফোন। 

 

৬। মোবাইল ফোন -এ ভালো মেমোরি ব্যবহার করাঃ

এই পয়েন্টে আগের পয়েন্টের সাথে কিছুটা মিল রাখে। আপনার ফোনের সাথে কখনই কম দামি মেমোরি কার্ড ব্যবহার করবেন না। আমরা অনেকেই হয়তো একদম 100 200 এরকম অনেক মেমোরি কিনে নেই যে গুলোর উপরে অনেক নামিদামি ব্র্যান্ডের নাম লেখা রয়েছে। না,  এগুলো কেন যাবেনা। এগুলো ফেক। কম দামে রাস্তার পাশ থেকে একটা মেমোরি কিনে আপনার ফোনে ব্যবহার করবেন না। যদি আপনার ফোনে ভালো পারফরমেন্স পেতে চান তাহলে তো অবশ্যই ব্যবহার করবেন না। আপনার ফোনের স্টোরেজ যদি কম থাকে এবং আপনার ফোনে যদি মেমরি কার্ড ব্যবহার করতে হয়  তবে মিনিমাম  একটি ক্লাস টেন এর মেমোরি কার্ড ব্যবহার করুন এতে করে আপনার ফোনের সর্বোচ্চ পারফরম্যান্স পাবেন। 

 

৭। ব্যাটারি সার্ভিস অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারঃ

 না আপনার ফোনে কোন ব্যাটারি চার্জিং অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করার প্রয়োজন নাই। এই কাজটি ম্যাক্সিমাম মানুষ ভুল করে থাকেন এবং তারা মনে করেন ব্যাটারি সেভিং অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করলে তাদের ফোনে চার্জ ব্যাকআপ অনেক ভাল টিকে।  কিন্তু এই ধারনাটি সম্পুর্ন ভুল। এই কাজটি করার কোন দরকার নেই। আপনার স্মার্টফোনের মধ্যে দেখবেন ইনবিল্ট পাওয়ার সেভিং মোড দেওয়া রয়েছে। চার্জ শেষ হয়ে যেতে চাইলে অথবা চার্জ বাঁচাতে চাইলে পাওয়ার সেভিং মোড অন করে দিলেই আপনার ফোন অটোমেটিকলি পাওয়ার সেভ করতে থাকবে।  তাই থার্ড পার্টি কোন অ্যাপ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন ফোনের ডিফল্ট পাওয়ার সেভিং মোড ব্যবহার করুন।  থার্ড পার্টি কোন পাওয়ার সেভিং মোড   অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করার ফলে আপনার ফোনের ব্যাটারি সেভ করবে না  উল্টা সেই অ্যাপটি আপনার ফোনে ব্যাকগ্রাউন্ডে চালু হয়ে থাকবে এবং সে নিজেই চার্জ  ডাউন করতে  থাকবে। 

 

৮। পারমিশনঃ

 অনেকেই স্মার্ট ফোনে নানান রকমের অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে থাকেন।  অ্যাপ্লিকেশনগুলো ব্যবহার করার সময় অ্যাপগুলো নিজেই আপনার ফোনের বিভিন্ন পারমিশন নিয়ে থাকে।  আপনি কি সঠিক আর কে সঠিক পারমিশন  দিচ্ছেন?   মনে করুন আপনি আপনার ফোনে একটি ওয়ালপেপার অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করলেন এবং সেটি ওপেন করার সময় আপনার কাছে মাইক্রোফোনের পারমিশন চাচ্ছে। আচ্ছা!  ওয়ালপেপার অ্যাপ মাইক্রোফোনের পারমিশন নিয়ে এসে কি করবে?  আবার মনে করো না আপনি গুগল প্লে স্টোর থেকে একটা ক্যালকুলেটর অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করলেন।  সেটা ওপেন করার সময় দেখলেন সেটি  ক্যামেরা পার্মিশন চাচ্ছে।  আচ্ছা বলুন তো!  ক্যালকুলেটরে ক্যামেরা পারমিশন নিয়ে কি করবে?  এরকম অনেক সফটওয়্যার রয়েছে যেগুলো তাদের প্রয়োজন না  তবুও সেই পারমিশন গুলা নিয়ে থাকে।  যদি আপনি কোন অ্যাপ ব্যবহার করার সময় এটা দেখেন যে তারা আনইউজুয়াল কোন পারমিশন চাচ্ছে তাহলে সেটি অবশ্যই দিবেন না।  তারা আনইউজুয়াল পার্মিশন চাচ্ছে মানেই আপনার ফোন থেকে ডেটা চুরি করবে তথ্য চুরি করবে আপনার আইডিটি হ্যাক করবে। তাই এ ব্যাপারে সতর্ক থাকুন

আরও পড়ুন -   দেখুন কী ভাবে পর্ণ সাইট ব্রাউজ করা বন্ধ করবেন।

 

৯। ফোনের চার্জিং লেভেলঃ

 আপনার ফোনের চার্জিং লেভেল একেবারে নিচে নামিয়ে ফেলবেন না। যেমন ধরুন, আপনার ফোনে চার্জ আছে মাত্র  দুই পার্সেন্ট।  তবুও আপনি কথা বলে যাচ্ছেন অথবা হেভি নেট ব্রাউজ করে যাচ্ছেন অথবা  গেমিং করে যাচ্ছেন।  এই কাজটি স্মার্টফোনের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর একটি কাজ। এটি করার ক্ষেত্রে স্মার্টফোনের কয়েকটি জায়গায় প্রেসার পড়ে।  1ঃ  এটির ব্যাটারীতে প্রেসার পড়ে। যেমন এটি ব্যবহার করার সময় দেখবেন অনেক গরম হয়ে যাচ্ছে। 2ঃ  স্মার্টফোন থেকে এটির মাইক্রোওয়েভ টা একটু জোরালোভাবে ছড়াতে থাকে। এমত অবস্থায় অবশ্যই স্মার্টফোনটা ব্যবহার করা উচিত নয়। তাই আপনার ফোনের চার্জ লেভেল যদি 10 15 শতাংশ এর মধ্যে চলে আসে তাহলে আপনি ফোনটি 15 চার্জ করে নিন এতে করে আপনার ফোনের স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। 

 

১০। থার্ড পার্টি চার্জার ব্যবহার করাঃ

ফোন চার্জ করার সময় অনেকেই যাতা চার্জার ব্যবহার করে থাকেন।  অনেক সময় ফোনের অফিশিয়াল চার্জার নষ্ট হয়ে যায় এবং  অনেক সময়ই আশেপাশে  অরিজিনাল চার্জার থাকেনা।  তাই অনেকেই  যে চার্জার সামনে  পান  সেটি দিয়েই ফোন চার্জ করে থাকেন।  এটি আপনার ব্যাটারি হেলথের জন্য অনেক বেশি রিস্কি।  তাই যথাসম্ভব চেষ্টা করুন ফোনের অরিজিনাল চার্জার ব্যবহার করার জন্য। 

উপসংহার

আশা করি জানতে পেরেছেন মোবাইল ফোন বা স্মার্টফোন ব্যবহারের সতর্কতা সম্পর্কে। তবে যদি কোন মন্তব্য বা জিজ্ঞাসা থাকে অবশ্যই কমেন্ট করবেন। আমরা গুরুত্বের সাথে আপনার কমেন্টের রিপ্লাই দিব।

Copy link
Powered by Social Snap